জামিন নিতে ফখরুলসহ সিনিয়র নেতারা হাইকোর্টে

পুলিশের কাজে বাধা ও নাশকতার অভিযোগের মামলায় জামিন নিতে হাইকোর্টে গেছেন। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলসহ কয়েকজন সিনিয়র নেতারা।

বুধবার (৩ অক্টোবর) সকালে তারা হাইকোর্টে যান। পরে বিএনপির শীর্ষস্থানীয় সাত নেতার অন্তর্বর্তীকালীন জামিন চেয়ে হাইকোর্টে পৃথক তিনটি আবেদন করা হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ব্যারিস্টার এ কে এম এহসানুর রহমান জানান, ‘আবেদনটি বিচারপতি মোহাম্মদ আব্দুল হাফিজ ও বিচারপতি কাশেফা হোসেনের বেঞ্চে আজ (বুধবার) শুনানি হতে পারে।’

আবেদনকারীরা হলেন— বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমান উল্লাহ আমান ও রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু।

এর আগে মঙ্গলবার (২ অক্টোবর) এই মামার অপর দুই আসামি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়াকে আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

উল্লেখ্য, পুলিশের কাজে বাধা ও নাশকতার অভিযোগ এনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খানসহ দলটির ৫৫ নেতার বিরুদ্ধে সোমবার (১ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, রবিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টা ২৫ মিনিটের দিকে মগবাজার রেলগেট এলাকায় আসামিরা বেআইনিভাবে সংঘবদ্ধ হয়ে অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পুলিশের কর্তব্য কাজে বাধা দেন। পুলিশকে হত্যার উদ্দেশ্যে আক্রমণ করে গুরুতর জখম করেন। যানবাহন ভাঙচুর ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করেন।