তিউনিসিয়াকে ৫০ কোটি ডলার ঋণ দেবে সৌদি আরব

0
32

আমার কাগজ ডেস্ক:

সহজ সুদে তিউনিসিয়াকে ৫০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ দেবে সৌদি আরব। এছাড়া দেশটির দুটি প্রজেক্টে ১৪ কোটি টাকার অর্থায়নও করবে তারা। তিউনিসিয়ার দুটি সূত্র উদ্ধৃত করে বুধবার এই খবর জানিয়েছে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এর একদিন আগে ব্যাপক বিক্ষোভের মধ্যেই তিউনিসিয়া সফর করেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। তবে ওই সফরেই তাকে তিউনিসিয়ার সর্বোচ্চ পুরস্কার রিপাবলিক’স মেডেল দেন প্রেসিডেন্ট বেজি কাইদ এসেবেসি। অর্থনৈতিক ভাবে সংগ্রাম করতে থাকা তিউনিসিয়া বৈদেশিক অর্থায়নের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে।

সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডের পর চলতি সপ্তাহে প্রথম বিদেশ সফরে বের হন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। বাহরাইন, সংযুক্তি আরব আমিরাত ও মিসরে উষ্ণ অভ্যর্থনা পেলেও তিউনিসিয়াতে বিক্ষোভের মুখে পড়েন তিনি। হাজার হাজার মানুষ তাকে খাশোগি হত্যায় জড়িত খুনি অভিহিত করে সফরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে। বিক্ষোভের মধ্যে সফরের কর্মসূচি সীমিত করে শুধু দেশটির প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠক করেন।

প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা নোওরেদিনে বেন টিসা রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনকে বলেছেন, কয়েক দিনের মধ্যেই সৌদি আরবের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ চুক্তির ঘোষণা দেবে তিউনিসিয়া। কম সুদের একটি ঋণ, বিনিয়োগ চুক্তি ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ বিস্তারিত তথ্য ওই সময়ে জানানো হবে।

তিউনিসিয়ার এক কর্মকর্তা ও সৌদি যুবরাজ এবং প্রেসিডেন্ট এসেবেসির সঙ্গে আলোচনায় সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র রয়টার্সকে জানিয়েছে, ঋণের পরিমাণ হবে ৫০ কোট মার্কিন ডলার। এছাড়া দুটি প্রজেক্টে ১৪ কোটি মার্কিন ডলারের অর্থায়ন করবে সৌদি উন্নয়ন তহবিল। তবে দুটি প্রজেক্টের বিষয়ে কোনও বিস্তারিত তথ্য জানাননি তারা।

বেকারত্ব, দারিদ্র্য ও মূল্যস্ফিতি রেকর্ড ছোঁয়ার জেরে ২০১১ সালে সাবেক স্বৈরশাসক জিনে আল-আবেদিন বেন আলী গণবিক্ষোভের মুখে সরে যাওয়ার পর থেকেই সংকটে আছে দেশটির অর্থনীতি। বাজেট ঘাটতি কমাতে হিমশিম খাচ্ছে তিউনিসিয়া। বৈদিশিক মুদ্রার তহবিলও পড়তির দিকে, আন্তর্জাতিক ঋণদাতারাও নানা শর্তের ফাঁদে ফেলছে তাদের। চাপ দিচ্ছে জনগণের ওপর বিলের বোঝা বাড়ানোর। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) চাপে চলতিব বছর বাজেট ঘাটতি চলতি বছরে ৪ দশমিক ৯ নামিয়ে আনার চেষ্টায় আছেন প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ শাহেদ। গত বছর এই বাজেট ঘাটতির পরিমাণ ছিল ৬ দশমিক ৩ শতাংশ।

তিউনিসিয়ার সঙ্গে সৌদি আরবের দীর্ঘ দিনের সুসম্পর্কের কথা উল্লেখ করে দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনকে সৌদি যুবরাজ বলেছেন, তিউনিসিয়া বাদ দিয়ে আমি উত্তর আফ্রিকা সফরে আসতে পারি না… তিউনিসিয়ার প্রেসিডেন্ট বাবার মতো’।

LEAVE A REPLY