বিচারপতির ছেলেকে হাইকোর্টের আইনজীবী ঘোষণা, প্রতিকার চেয়ে রিট

বার কাউন্সিলের কোনো পরীক্ষায় অংশ না নিয়ে এবং বিচারিক আদালতের আইনজীবী সদন না পেলেও একজনকে হাইকোর্ট বিভাগের আইনজীবী হিসেবে সনদ দানের গেজেট চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করা হয়েছে।

জানা গেছে, বাংলাদেশ বার কাউন্সিল থেকে হাইকোর্টের সনদ পাওয়া এই আইনজীবী সুপ্রিম কোর্টের একজন বিচারপতির ছেলে।

হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় করা রিটের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

তিনি জানান, একজন আইনের ডিগ্রিধারীকে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের রুল ও অর্ডারের বাইরে গিয়ে কোনো রকম পরীক্ষা ছাড়াই হাইকোর্ট বিভাগের আইনজীবী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে, যা বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের রুলস এবং অর্ডারের লঙ্ঘন। তাই বিষয়টি চ্যালেঞ্জ করে রিট করা হয়েছে।

রিটে আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান, বার কাউন্সিলের সচিব ও সংশ্লিষ্ট আইনজীবীকে বিবাদী করা হয়েছে।

রিটটি হাইকোর্টের বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে শুনানি হতে পারে বলে জানান রিটকারী আইনজীবী।

হাইকোর্ট বিভাগের একজন আইনজীবীর প্র্যাকটিস করার যোগ্যতা কী?

নিম্ন আদালতে দুই বছর আইনজীবী হিসেবে কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে হাইকোর্ট বিভাগে আইনজীবী হিসেবে সনদ নেয়ার যোগ্যতা হয়। তবে, হাইকোর্টে ১০ বছরের বেশি প্র্যাকটিস করছেন এমন এক সিনিয়রের সঙ্গে শিক্ষানবিশি চুক্তি করতে হয়।

আর যদি বার অ্যাট-ল ডিগ্রি বা এলএলএম পরীক্ষায় কমপক্ষে ৫০ শতাংশ নম্বর থাকে, তখন বার কাউন্সিল থেকে সনদ পাওয়ার পর এক বছর অতিক্রান্ত হলে আপনি পরীক্ষা দিতে পারবেন।

সে ক্ষেত্রে পূর্বশর্ত হলো, সুপ্রিম কোর্টের একজন সিনিয়র আইনজীবীর অধীনে আপনাকে এক বছর প্র্যাকটিস করতে হবে এবং এ মর্মে আপনার সিনিয়রের একটা প্রত্যয়নপত্র আবেদনপত্রের সঙ্গে দাখিল করতে হবে।

বাংলাদেশ বার কাউন্সিল থেকে পরীক্ষা দেয়ার নিয়ম বা আইনজীবী সদন গ্রহণের বিধান কী?

আপনি যদি বাংলাদেশের নাগরিক হন এবং কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় (পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়) থেকে আইন বিষয়ে ডিগ্রিপ্রাপ্ত বা স্বীকৃত বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনে স্নাতক অথবা আপনি যদি হন একজন ব্যারিস্টার, তাহলে আইনজীবী হতে হলে বার কাউন্সিল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে।

পরীক্ষার চার ধাপ
প্রথমে ছয় মাস শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করবেন এ মর্মে এমন একজন সিনিয়রের সঙ্গে একটি চুক্তি করতে হবে। তবে সিনিয়রের কমপক্ষে ১০ বছর নিয়মিত ওকালতি করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তার সঙ্গে থাকবে একটি অ্যাফিডেভিট। আর থাকবে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের অনুকূলে নির্ধারিত ফির ব্যাংক ড্রাফট বা পে-অর্ডার প্রেরণের রসিদ। আইনে স্নাতক পরীক্ষা বা অন্য কোনো ডিগ্রিপ্রাপ্তির পরীক্ষা প্রদানের পরপরই অনতিবিলম্বে উল্লিখিত চুক্তিপত্র, অ্যাফিডেভিট ও ব্যাংক ড্রাফট বা পে-অর্ডার প্রেরণের রসিদ বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সেক্রেটারি বরাবর পাঠিয়ে দিতে হবে।

কাগজপত্র বার কাউন্সিল কর্তৃক গৃহীত হওয়ার ছয় মাসের মধ্যে বার কাউন্সিল আপনার বরাবর একটি রেজিস্ট্রেশন কার্ড ইস্যু করবে। সেখানে আপনাকে একটা রেজিস্ট্রেশন নম্বর দেয়া হবে। ছয় মাস অতিক্রান্ত হলে অ্যাডভোকেট তালিকাভুক্তির পরবর্তী লিখিত পরীক্ষার তারিখ জানিয়ে আপনাকে ওই পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য কিছু কাগজপত্র সংযুক্তিসাপেক্ষে আবেদনপত্র প্রেরণের আহ্বান জানানো হবে:

বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের অনুকূলে পরীক্ষার নির্ধারিত ফি বাবদ নির্ধারিত টাকা ব্যাংক ড্রাফট বা পে-অর্ডার বা ব্যাংকে বার কাউন্সিলের অ্যাকাউন্টে নগদ জমা দেয়ার রসিদ, সিনিয়রের কাছ থেকে শিক্ষানবিশি সমাপনসংক্রান্ত প্রত্যয়নপত্র, পূর্ণ বিবরণসহ পরীক্ষার্থী ও তার সিনিয়রের স্বাক্ষর, সিলমোহর ও তারিখযুক্ত কমপক্ষে পাঁচটি দেয়ানি ও পাঁচটি ফৌজদারি মামলার তালিকা, যার শুনানিকালে পরীক্ষার্থী নিজে তার সিনিয়রের সঙ্গে আদালতে উপস্থিত ছিলেন, এগুলোর সঙ্গে থাকতে হবে শিক্ষাগত যোগ্যতার সব সনদ, চারিত্রিক সনদ ও ছবি।

লিখিত পরীক্ষা
সফলভাবে সমাপ্ত হলে বার কাউন্সিল থেকে আপনার ঠিকানায় ডাকযোগে চলে যাবে লিখিত পরীক্ষার প্রবেশপত্র। ১০০ নম্বরের পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে আপনাকে। প্রতিবছর এ পরীক্ষা দুইবার অনুষ্ঠিত হয়। তবে কোনো ক্ষেত্রে বছরে একবারও এ পরীক্ষা হয়।

মৌখিক পরীক্ষা
পঠিত সব আইনি বিষয়ের ওপর ৫০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। মৌখিক পরীক্ষায় একই সঙ্গে পর্ব-২-এ উল্লিখিত ১০ মামলার বিষয়ে কেস ডায়েরি দাখিল করতে হবে। তবে ব্যারিস্টারদের কেস ডায়েরি দাখিলের প্রয়োজন পড়ে না।

আপনার কমেন্ট এখানে পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here