ঋণ কেলেঙ্কারি : দুই আসামিকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

0
35

আমার কাগজ প্রতিবেদক :

বেসিক ব্যাংক ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনায় মেসার্স ইকসল ফুড বেভারেজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাইফুল ইসলাম এবং সোনালী ব্যাংক ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনায় নারায়ণগঞ্জের মেসার্স সীমা নীটওয়্যার এন্ড ডাইং প্রাইভেট লিমিটেডের চেয়ারম্যান আবদুর রশিদ মিয়াকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সাইফুল ইসলামের জামিন প্রশ্নে জারি করা রুল খারিজ করে এবং আব্দুর রশিদকে মামলা থেকে অব্যাহতির আদেশ বাতিল করে এই আত্মসমর্পণের আদেশ দেওয়া হয়। পৃথক আবেদনের শুনানি করে আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি মো.নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

সংশ্লিষ্ট বেঞ্চের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমিন উদ্দিন মানিক জানান, বেসিক ব্যাংক বংশাল শাখা থেকে স্বাক্ষরবিহীন আবেদনের মাধ্যমে ঋণ নিয়ে সুদে আসলে ৭ কোটি ৮৫ লাখ ৩২ হাজার ৯৮৭ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুর্নিতী দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ সিরাজুল হক ২০১৭ সালের ৬ ডিসেম্বর সাইফুল ইসলামসহ তিনজনকে আসামী করে বংশাল থানার মামলা করেন।

এ মামলায় হাইকোর্ট গত বছরের ১৫ মে হাইকোর্ট সাইফুল ইসলামকে জামিন দিয়ে রুল দেন। পরে ১৫ জুলাই আপিল বিভাগ দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন বাতিল করে দুই সপ্তাহের মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের কথা বলেছিলেন। এখন বৃহস্পতিবার রুলও খারিজ হয়ে গেল। তার আত্মসমর্পণ না করে উপায় নেই। বর্তমানে সে পলাতক আছে।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমিন উদ্দিন মানিক জানান, সোনালী ব্যাংকের নারায়ণগঞ্জ মহিলা শাখা বর্তমানে ফরেন এক্সচেঞ্জ শাখা, থেকে মেসার্স সীমা নীটওয়্যার এন্ড ডাইং প্রাইভেট লিমিটেডের পক্ষে ৬৫ শতক জমি বন্ধক রেখে নীয়মনীতি লংঘন ও ক্ষমতার অপব্যবহার করে ১৩কোটি ৪৬ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪৬ টাকা ঋণ গ্রহণ ও প্রদান করা হয়। যা পরে সুদেমূলে ২২ কোটি ৪৯ লাখ ৬৬ হাজার ২১৩ টাকা হয়। বিষয়টি অনুসন্ধান করে দুদকের উপ-পরিচালক মো. সিরাজ উদ্দিন ২০১৩ সালের ২৯ জানুয়ারী আবুর রশিদ মিয়াসহ তিনজনকে আসামী করে নারায়ণগঞ্জ সদর থানায় মামলা দায়ের করেন।

তদন্ত শেষে ২০১৪ সনের ৩০ জুন চার্জশিট দাখিল করেন। ঢাকার বিভাগীয় স্পেশাল জজ আদালত গত বছরের ১০ মে চার্জ শুনানীর পর আব্দুর রশিদকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছিলেন। সেই অব্যাহতি আদেশের বিরুদ্ধে দুদক হাইকোর্টে রিভিশন মামলা করে। হাইকোর্ট গত বছরের ৮ অক্টোবর তার অব্যাহতির আদেশ কেন বাতিল করা হবে না তা জানতে রুল দিয়েছিলেন। বৃহস্পতিবার সেই রুলটি যথাযখ ঘোষণা করে অব্যাহতির আদেশ বাতিল করে রায় দেন। ফলে তার বিরুদ্ধে মামলা চলবে।

আপনার কমেন্ট এখানে পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here