গণভবনে প্রবেশ পাসে ৭ লাখের চুক্তি, চক্রের মূলহোতা গ্রেফতার

প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে প্রবেশ করানোর কথা বলে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয়া চক্রের মূল হোতা মো. ফয়সাল হোসেনকে (৩৪) গ্রেফতার করেছে শেরে-বাংলা থানা পুলিশ।

পুলিশ জানায়, গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর গণভবনে প্রবেশ করার জন্য ঝালকাঠি থেকে আসেন শামসুন্নাহার। তিনি ঝালকাঠি জেলার সাবেক মেয়র আফজাল হোসেনের স্ত্রী। গণভবনের সামনে থেকে শামসুন্নাহারকে ডেকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করানোর কথা বলে ৭ লাখ টাকা চুক্তি করে চক্রটি। পরে গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর ও চলতি বছরের ২ জানুয়ারি তার কাছ থেকে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। ২ জানুয়ারি তাকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের ব্যবস্থা করে দেয়ার আগে তার সব গহনা চক্রটি নিয়ে নেয়। পরে দেখা করে বের হলে ১ লাখ টাকার বিনিময়ে আবার ফিরিয়ে দেয়।

পরে শেরে-বাংলা থানায় অভিযোগ করলে শুক্রবার রাতে পল্লবী থেকে চক্রের মূলহোতা ফয়সাল হোসেনকে গ্রেফতার করা হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন তেজগাঁও ডিভিশনের এডিসি রুবায়েত জামান, শেরেবাংলা থানার ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ ও উপ-পরিদর্শক সুজানুর ইসলাম।

ভুক্তভোগী শামসুন্নাহার বলেন, ‘আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার জন্য ঝালকাঠি থেকে ঢাকায় আসি। পরে ২৩ ডিসেম্বর গনভবনের সামনে আসলে তারা আমাকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার বলে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে। আমি তাদের ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা দেই।তারপরও আমাকে টাকা দেয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে। আমি টাকা দিতে না চাইলে আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিতে থাকে। পরে আমি বিষয়টি শেরেবাংলা নগর থানায় জানাই। শুক্রবার রাতে অভিযুক্ত ফয়সাল হোসেনকে শেরেবাংলা থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

মো. ফয়সাল হোসেন গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া থানার বন্নি গ্রামের মৃত ওমর আলী শেখের ছেলে।

শেরেবাংলা নগর থানার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক সুজানুর ইসলাম জানান, শামসুন্নাহারের অভিযোগের ভিত্তিতে এডিসি ও ওসি স্যারদের নেতৃত্বে পল্লবী থেকে শুক্রবার রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় শেরেবাংলা নগর থানায় একটি মামলা (মামলা-০৩) করা হয়েছে।

শেরেবাংলা নগর থানার ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, মামলার বাদীর তথ্য মতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পল্লবী থানা এলাকা হতে ফয়সালকে গ্রেফতারর করা হয়। মামলায় ফয়সালকে এক নম্বর আসামি করে অজ্ঞাত আরও কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। এ চক্রের সঙ্গে আরও কে কে আছে, সেটা খতিয়ে দেখে তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।

আপনার কমেন্ট এখানে পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here