চীন-রাশিয়ার ভ্যাকসিন ব্যবহার করবে না যুক্তরাষ্ট্র: ফাউসি

0
4

চীন এবং রাশিয়ার তৈরি করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিনের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক ব্যাধি বিশেষজ্ঞরা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই মহামারির ধকল দশকের পর দশক ধরে বয়ে বেড়াতে হবে বলে যখন সতর্ক করে দিয়েছে, তখন একটি কার্যকর ভ্যাকসিনের খোঁজে মরিয়া বিশ্ব। এর মাঝেই মার্কিন কর্মকর্তারা চীন এবং রাশিয়ার তৈরি করোনার সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করলেন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিশ্বজুড়ে জরুরি অবস্থা ঘোষণার ছয় মাস পর থেকে এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে মারা গেছেন ৬ লাখ ৭৯ হাজারের বেশি মানুষ। ফরাসী বার্তাসংস্থা এএফপির পরিসংখ্যান বলছে, বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন অন্তত ১ কোটি ৭৯ লাখ মানুষ।

চীনের বেশ কয়েকটি কোম্পানি করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরির দৌড়ে এগিয়ে রয়েছে। অন্যদিকে, রাশিয়া করোনার সম্ভাব্য একটি ভ্যাকসিন আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে বাজারে আনার সম্ভাব্য লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে।

কিন্তু মার্কিন শীর্ষ সংক্রামক ব্যাধি বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউসি বলেছেন, চীন এবং রাশিয়ার তৈরি কোনও ভ্যাকসিন যুক্তরাষ্ট্রে ব্যবহারের সম্ভাবনা নেই। কারণ এ দুই দেশের নিয়ন্ত্রক ব্যবস্থা পশ্চিমের তুলনায় অনেক বেশি অস্বচ্ছ।

মার্কিন কংগ্রেসের শুনানিতে অংশ নিয়ে শুক্রবার তিনি বলেন, আমি আশা করছি, কাউকে ভ্যাকসিন দেয়ার আগে চীন এবং রাশিয়া এর প্রকৃত পরীক্ষা চালাবে। পরীক্ষার আগেই ভ্যাকসিন বিতরণ করার জন্য প্রস্তুতির দাবি করা, আমার মতে- সবচেয়ে বড় সমস্যা।

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন চলতি বছরের শেষে অথবা আগামী বছরের শুরুর দিকে পাওয়া যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের সংক্রামক ব্যাধি ও জাতীয় অ্যালার্জি ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. অ্যান্থনি ফাউসি। তিনি বলেন, আমি বিশ্বাস করি, এই সময়ের মধ্যে ভ্যাকসিন চলে আসবে। যুক্তরাষ্ট্রে দ্রুতগতিতে ভ্যাকসিন তৈরির কাজ এগিয়ে চললেও সুরক্ষা মান এবং বৈজ্ঞানিক শর্তাবলির সঙ্গে কোনও ধরনের আপোস করা হবে না বলে জানান তিনি।

মার্কিন এই শীর্ষ সংক্রামক ব্যাধি বিশেষজ্ঞ বলেন, আমি জানি, অনেক মানুষ মনে করবেন- এটা খুব দ্রুত গতিতে তৈরি হচ্ছে এবং এর সুরক্ষা এবং বৈজ্ঞানিক বিষয়াবলিতে আপোস করা হবে। আমি তাদের আশ্বস্ত করতে পারি যে, এ ধরনের ঘটনা ঘটছে না। ভিন্ন ভিন্ন প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে আমাদের কাজ দ্রুতগতিতে চলছে।

তিনি বলেন, মডার্নার তৈরি করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ধাপের পরীক্ষায় বেশ সন্তোষজনক ফল পাওয়া গেছে। সম্ভাব্য অন্যান্য ভ্যাকসিনের সঙ্গেও সরকারের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে উৎপত্তি হওয়া করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে এখন পর্যন্ত এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৪৭ লাখ ২৭ হাজার ২৭৩ জন এবং মারা গেছেন ১ লাখ ৫৭ হাজার ১৭০ জন। বিশ্বে প্রাণহানি এবং আক্রান্তের সংখ্যা শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

আপনার কমেন্ট এখানে পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here