‘প্রশাসনের সহায়তায় কাটা হচ্ছে ভোট’, বিএনপি প্রার্থীর ভোট বর্জন

সাতক্ষীরার কলারোয়া পৌরসভা সকাল ৮ টা থেকে ভোটগ্রহন চলছে। এদিকে বিএনপির প্রার্থীর এজেন্টদের মারপিট করে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া ভোটকেন্দ্রে সাংবাদিকদের প্রবেশে বাধা দিচ্ছে পুলিশ বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির প্রার্থী শরিফুজ্জামান তুহিন।

শনিবার (৩০ জানুয়ারি) সকাল ১০টায় নিজ নির্বাচনী কার্যালয়ে বিএনপির প্রার্থী শরিফুজ্জামান তুহিন ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, এই সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু ভোট হতে পারে না। আমি প্রার্থী অথচ আমাকে কেন্দ্র থেকে বের করে দিয়েছে মারপিট করে। প্রতিটি কেন্দ্রের এজেন্টদেরও মারপিট করে বের করে দিয়েছে। সাংবাদিকদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দিচ্ছে না। প্রহসনের এক নির্বাচন হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, সকাল ৯টার আগেই প্রতিটি কেন্দ্রের ব্যালটে সিল মারা শেষ করে ফেলেছে। পৌরসভার ভোটার নয় এমন নারী-পুরুষদের এনে ভোটকেন্দ্রে রাখা হয়েছে। ভিতরে প্রিসাইডিং অফিসারের সহযোগিতায় পুলিশ ভোট কেটে বাক্স ভরছে। কোনো আইনি সহায়তা আমি পাইনি।

বিএনপি প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট ফরহাদ হোসেন বলেন, আমাকে কোনো কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। মারপিট করে বের করে দেয়া হয়েছে।

পৌরসভার মুরালীকাটি গ্রামের আবুল খায়ের বলেন, ভোট দিতে গেলে আমাকে বের করে দিয়েছে। ভোট দিতে দেয়নি।

এদিকে পৌরসভার গোপিনাথপুর ভোটকেন্দ্রে কেন্দ্র শত শত নারী-পুরুষদের উপস্থিতি দেখা যায়। তবে কেন্দ্রে সাংবাদিকদের ছবি ও ভিডিও নিতে বাধা দেন দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির বলে জানা গেছে।

এছাড়া ইন্ডিপেনডেন্ট টিভির ক্যামেরাপার্সন পলাশকে গলাধাক্কা দিয়ে বের করে দেওয়া হয়েছে। সাংবাদিক পলাশ বলেন, কেন্দ্রের ভিডিও নিতে গেলে পুলিশ কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির বাধা দেয়। গলাধাক্কা দিয়ে বের করে দেয়। ঘটনাটি পুলিশ সুপারকে জানিয়েছি।

গোপিনাথপুর ভোটকেন্দ্রে দায়িত্বরত ম্যাজিষ্ট্রেট ইন্দ্রজিত সাহা বলেন, কেন্দ্রে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার কমেন্ট এখানে পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here