বারের সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ : ৩৫৯০ জনের লিখিত পরীক্ষা চেয়ে রিট

আইনজীবী হিসেবে অন্তর্ভুক্তিতে দ্বিতীয় বার লিখিত পরীক্ষা দিতে পারবেন না শিক্ষানবিশরা বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের এমন সিদ্ধান্তকে অযৌক্তিক আখ্যা দিয়ে তা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে। রিটে ৩৫৯০ জনকে লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ চাওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) সকালে ৩ হাজার ৫৯০ জন শিক্ষানবিশ আইনজীবীর পক্ষে জনস্বার্থে হাইকোর্টের বিচারপতি তারিক-উল-হাকিমের ভার্চুয়াল বেঞ্চে এই রিট আবেদনটি দায়ের করা হয়।

শিক্ষানবিশের পক্ষে আবেদনটি করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির। রিটটি চলতি সপ্তাহে শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। রিটের বিষয়টি নিশ্চিত করেন আইনজীবী মুহাম্মদ শিশির মনির নিজে।

রিটে আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ বার কাউন্সিল, বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান, বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান ও (এনরোলমেন্ট) পরীক্ষা বিষয়ক কমিটির প্রধানকে বিবাদী করা হয়েছে।

রিট আবেদনে বলা হয়েছে, বার কাউন্সিলের গতকাল ২৬ জুলাই দেওয়া নোটিশে ২০১৯ সালের ১৯ ডিসেম্বর সংশোধিত বার কাউন্সিল রুল এর ভুল ব্যাখ্যা করা হয়েছে। অবশ্যই দ্বিতীয়বার লিখিত পরীক্ষার সুযোগ বর্তমান পরীক্ষার্থীরা পাবেন। অবিলম্বে কার্যকর হওয়ার অর্থই হলো বর্তমান পরীক্ষার্থীরা আগামী ২৬ তারিখের পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবেন।

দ্বিতীয়ত এই নিয়ম সংশোধন করা হয়েছে বর্তমান পরীক্ষার্থীদের সুবিধা দেয়ার জন্য। এছাড়া এই সংশোধনের আর কোনো উদ্দেশ্য থাকতে পারে না। বার কাউন্সিল সংশোধিত এই রুলসের উদ্দেশ্য ব্যাহত করেছে। ফলে এই নোটিশ কার্যকর হতে পারে না।

আবেদনে আরও বলা হয়েছে, বার কাউন্সিল ২০১৯ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর এক নোটিশ দিয়ে জানায় যে, পূর্বে যারা এমসিকিউ পাস করেছে তাদের নতুন করে এমসিকিউ পরীক্ষা দিতে হবে না। হঠাৎ করে গতকাল ২৬ জুলাই এসে বলছে যে, তারা লিখিত পরীক্ষার সুযোগ পাবে না। এক মুখে দুই কথা আইনের দৃষ্টিতে কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় বলে আবেদনে বার কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত বাতিল চাওয়া হয়েছে।

আপনার কমেন্ট এখানে পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here