মাউশি মহাপরিচালক হলেন অধ্যাপক গোলাম ফারুক

0
79

আমার কাগজ প্রতিবেদক:

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক পদে নিয়োগ পেলেন জাতীয় শিক্ষা ব্যবস্থাপনা একাডেমির (নায়েম) মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক। রোববার এ নিয়োগ সংক্রান্ত আদেশ জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ।

অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক নায়েমের মহাপরিচালক হওয়ার আগে মাউশির চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক পদে ছিলেন।

মাউশির মহাপরিচালক পদে নিয়োগ পাওয়ায় তাকে অভিনন্দন জানিয়েছে স্বাধীনতা বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সংসদ, বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি এবং শিক্ষা বিষয়ক সাংবাদিকদের সংগঠন এডুকেশন রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ (ইরাব)।

সর্বশেষ মহাপরিচালক অধ্যাপক মো. মাহাবুবুর রহমান গত ৩ নভেম্বর সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তার মৃত্যুতে এ পদটি শুণ্য হয়। তার গুরুতর অসুস্থতার কারণে ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে মহাপরিচালকের রুটিন দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন মাউশির পরিচালক (প্রশাসন ও কলেজ) অধ্যাপক মো. শামছুল হুদা।

জানা গেছে, নতুন মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক ১৯৯৩ সালে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। ২০০৬ সালে তিনি অধ্যাপক হিসেবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে যোগ দেন। ২০০৮ সালে তৃতীয় গ্রেড লাভ করেন। দীর্ঘ সরকারি চাকরি জীবনে তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন সরকারি কলেজে শিক্ষকতার পাশাপাশি লিয়েনে সৌদি আরবের কিং খালিদ বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন ইংরেজির অধ্যাপক হিসেবে চাকরি করেছেন।

সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তী সময়ে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফলিত ভাষাবিজ্ঞান ও ইংরেজি ভাষা শিক্ষাদানের ওপর পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।

তার প্রকাশিত উল্লেখযোগ্য বইগুলো হলো- ‘প্লেটো: দর্শন ও রাষ্ট্রচিন্তা’, ‘অস্তিত্ববাদের স্রষ্টা সোরেন কিয়ের্কেগার্ড’, ‘দিবালোকে দুঃস্বপ্ন,’ ‘দি মুরং: এন এথনিক মাইনোরিটি অব বাংলাদেশ’। এছাড়া রেয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড এর একাদশ-দ্বাদশ শ্রেণির জন্য প্রকাশিত ‘ইংলিশ গ্রামার অ্যান্ড কম্পোজিশন।’

আপনার কমেন্ট এখানে পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here