মানিক চন্দ্র দে’র কবিতা

মানিক চন্দ্র দে

0
33

অদ্ভুত মশলাদার

দুষ্টু বন্ধু আমার, কি মজা পাও?
তুমি কি জাননা, কূলকিনাারাহীন দরিয়ায় আমার ভয়
আত্মা জড়সড়
বিশ্বাসের ভিত্তি কাঁপে থরথর।
তোমার নামটি যে তখন পড়েনা মনে আমার
ভয়ের ধূলায় ঢেকে যায় তোমার নাম,
ভয়ে কাঁপি অবিরাম।
সুস্থ সময়ে তো তোমায় ডাকি
মনের সুখে যখন থাকি!
‘তুমি অনন্ত, তুমি দয়াময়। ‘
কিন্তু মনে থাকেনা কেন ভয়ের সময়?

যখন একা ঢুকানো হলো এমআরই এর অন্ধ কুঠুরিতে
সুদূর চেন্নাই বা দিল্লীতে, সম্পূর্ণ আমি একা
বন্ড সই দিলাম নিজেই , নিজের মৃত্যুর পরোয়ানা নিজেই দিলাম লিখে- তোমার ভরসায় নয়,
ডাক্তার আছে যে পাশে সেই ভরসায়।
যদি মৃত্যু অগত্যা হয়। হোক! কী আর করা!
রাঙ্গামাটি চাকরি কালে হল সেরিব্রাল ম্যালেরিয়া,
বাঁচব বলে তো কেউ বলে নি
কিন্তু চিকিৎসার কল্যাণে মরলাম কই!
তখনও ডাকিনি তোমায়, ভরসা শুধু ডাক্তার আর ওষু
আবার হল ম্যালেরিয়া কলকাতায় ;
চিকিৎসা শুরু কলকাতা থেকে ঢাকায়।
ভাল হয়েও হলাম না। জীবাণুরা মরেনা
লুকিয়ে রইল কলিজায়।
তবুতো নিশ্চিত ছিলাম ডাক্তারের ভরসায়।
ভাল হয়ে কিন্তু কৃতজ্ঞতা জানাই শুধুই ঈশ্বরে।

আবার এল ডেঙ্গু এদেশে সালটি দু হাজার
আমার রক্তে বাসা বাঁধবেনা একি হয় আবার?
এতো স্বাদহীন হবে কেন এডিস?
রক্ত যে আমার ‘ ও পজিটিভ ‘!
রাজকীয় রক্ত বলে কথা!
বিরানী পোলাউয়ের স্বাদ যে তথা।
প্লাটিলেট পঁচাত্তর হাজার থেকে নিমেষে নেমে এল চল্লিশ হাজার
চারজন ডোনার রেডি করতে বলল নামজাদা এক ডাক্তার।
আবার ভরসা ডাক্তারে!
আবার বেমালুম ভুলে গেলাম তোমারে।
দুদিন পর প্লাটিলেট লাফিয়ে আবার আশিহাজার,
সুস্হ হয়ে সকলের সাথে জয়গান করলাম তোমার।

আবার এল বিশ্বব্যাপী মরণঘাতী করোনা।
কত সতর্ক, এন ৯৫, কেএন ৯৫ মেড ফ্রৃম
চীন সিঙ্গাপুর হাতে গ্লোবস মাথায় টুপি
সেনিটাইজার হ্যান্ডওয়াশ কাড়ি কাড়ি।
কিন্তু আমার রক্ত ওদের পছন্দ যে ভারি!
বার বার ডাকি ঈশ্বরে আবার।
প্রভু অকূল দরিয়ায় নৌকা দুলিওনা বারে বার!
আমি যে ভীতু, শুধু তোমাতেই স্হিতু
আর নিয়ে যেওনা আমায় অকূল দরিয়ায়।
তাহলে কিন্ত আমার ভুলতে বসব তোমায়!
কিন্তু তুমি আমাকে নিয়ে বার বার কী খেলায় মাতো?
আমিও যথারীতি গেলাম তোমায় ভুলেতো।
ততক্ষনাৎ মন বলে চলো আরোগ্য নিকেতন,
যেখানে আছে তোমার প্রিয়জন ।
বার বার ভাবি তাঁদের প্রেসক্রিপশন।
তোমার কথা তো মনে হয়না তখন?
আবার যখন ভাল হয়ে যাই,
তোমাকে তো আবার ফিরে পাই।
অনন্ত অসীম দয়াময় তুমি
জগৎ জুড়ে আছ অন্তর্যামী।
তাই কি রবীঠাকুর বলে গেছেন,
” মাঝে মাঝে তব দেখা পাই,
চিরদিন কেন পাইনা। “

ডাক্তার, ওষুধ আর তুমি, সব যেন মিলে মিশে একাকার
সুন্দর ভাবে বানিয়েছো জগৎ, তুমি অদ্ভুত মশলাদার।

আপনার কমেন্ট এখানে পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here