মিনুসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

0
3

আমার কাগজ প্রতিবেদক :
গত ২ মার্চ বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে মিজানুর রহমান মিনু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে কটূক্তি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার ইঙ্গিতপূর্ণ বক্তব্য দেয়ায় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে একটি মামলা করা হয়। গত ১৬ মার্চ আদালতে মামলার প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। এ মামলায় প্রতিবেদন গ্রহণ করে আদালত চার নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

বুধবার (৩১ মার্চ) দুপুরে রাজশাহী মহানগরীর রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম রাজশাহী মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৪ এ (আমলি আদালত বোয়ালিয়া) প্রতিবেদন দাখিল করেন। আদালতের বিচারক মো. সাইফুল ইসলাম প্রতিবেদন গ্রহণ করেন। এরপর শুনানি শেষে বিএনপির চার নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। একই সঙ্গে এ মামলার পরবর্তী শুনানির দিন আগামী ২৬ এপ্রিল ধার্য করেন বিচারক।

পুলিশ ও আদালত সূত্রে এসব তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

মামলার আসামিরা হলেন-বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সাবেক সিটি মেয়র ও মহানগর বিএনপির সভাপতি মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এবং সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন।

বিএনপির ওই সমাবেশে মিনু আরেকটি ১৫ আগস্ট ঘটানোর ‘ইঙ্গিতপূর্ণ’ বক্তব্য দিয়েছেন উল্লেখ করে ৯ মার্চ মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার আবেদন করা হয়। এরপর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মামলার অনুমতি দেয়।

১৬ মার্চ আদালতে মামলার প্রতিবেদন দাখিলের পেক্ষাপটে প্রাথমিক তদন্ত প্রতিবেদন ৩১ মার্চ দাখিলের জন্য রাজপাড়া থানার ওসিকে নির্দেশ দেয়া হয়। নির্ধারিত দিনেই ওসি আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে বলে তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন ওসি।

তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের সময় মামলার বাদী রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোসাব্বিরুল ইসলাম আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশের তদন্ত প্রতিবেদনের ওপর শুনানিতে অংশ নেন বাদীর আইনজীবী আসলাম সরকার।

পরোয়ানার বিষয়টি নিশ্চিত করে মামলার বাদী রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোসাব্বিরুল ইসলাম বলেন, ‘বিএনপির উসকানি ও ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে ১৬ মার্চ প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছিল। পরে আদালত রাজপাড়া থানার ওসিকে তদন্তের দায়িত্ব দেন। তদন্তে সত্যতা মেলে এবং তার পরিপ্রেক্ষিতে আদালত বিএনপির চার নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।’

আপনার কমেন্ট এখানে পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here