শিগগিরই ১৪ দিনের লকডাউনে যেতে পারে নিউইয়র্ক: ট্রাম্প

0
7

আমার কাগজ ডেস্ক :

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ‘করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা ঠেকাতে শিগগিরই নিউইয়র্ককে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে (লকডাউন) নেয়া হবে।’

দেশটিতে করোনা রোগীর সংখ্যা চীনকে ছাপিয়ে যাওয়ার পর স্থানীয় সময় শনিবার এমন সিদ্ধান্তের কথা জানান ট্রাম্প। খবর ইউএস নিউজের।

যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি অঙ্গরাজ্যেই করোনাভাইরাস সংক্রমণ ছড়িয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত জনবহুল রাজ্য নিউইয়র্ক ও নিউ জার্সি।

গত ২৪ ঘণ্টায় নিউইয়র্কে করোনায় আক্রান্ত ১৪৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম সিএনএন।

শনিবার এ বিষয়ে ট্রাম্পের মুখপাত্র মার্ক মিডোও বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর ভাসমান হাসপাতাল ‘কমফোর্ট’ পরিদর্শন শেষে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় কোনো কোনো রাজ্যকে কোয়ারেন্টিনে নেয়া হতে পারে তা সাংবাদিকদের সঙ্গে আলোচনা করেছেন।’

ট্রাম্পের বরাত দিয়ে মিডোও বলেন, ‘করোনা প্রতিরোধে আমরা সব বিকল্পই মূল্যায়ন করছি, খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ১৪ দিনের জন্য নিউইয়র্ক লকডাউনের ঘোষণা আসতে পারে। পাশাপাশি নিউজার্সি ও কানেকটিকাটকে লকডাউনের আওতায় আনা হবে।’

এরই মধ্যে শোনা যাচ্ছে, করোনাভাইরাস প্রতিরোধে জর্জিয়া লকডাউন ঘোষণা হতে পারে। ইতিমধ্যে ক্লাব, বার, ব্যাংক ও রেস্তোরাঁগুলো বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ আতঙ্কে অনেকেই খাদ্যসামগ্রী কিনে মজুদ করে রেখেছেন। দোকানগুলো প্রায় খালি পড়ে আছে। অনেকেই স্বেচ্ছায় গৃহবন্দি জীবন কাটাচ্ছেন।

জর্জিয়া ডিপার্টমেন্ট অব পাবলিক হেলথ জানিয়েছে, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে জর্জিয়ায় ৭৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। ২৮ মার্চ সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ৪৪৬ জন। আর ৬৬০ জন হাসপাতালে করোনার সঙ্গে যুদ্ধ করছেন।

উল্লেখ্য, জর্জিয়ায় প্রায় ২৪ হাজার বাংলাদেশি বাস করেন। এখন পর্যন্ত কোনো বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত হননি বলে জানিয়েছে বাংলাদেশি কমিউনিটি।

প্রসঙ্গত জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের দেয়া পরিসংখ্যান বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে এখন করোনা রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ৪ হাজার ৮৬০ ছড়িয়েছে, যা গোটা বিশ্বে সর্বোচ্চ। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১৮ হাজার ৮৪৮ জন।

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা পাঁচ লাখ ছুঁই ছুঁই। মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় ৩১ হাজার।

আপনার কমেন্ট এখানে পোস্ট করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here